আজ সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০ || ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সোমবার, ০৭:০৭ পূর্বাহ্ন
শুক্রবার, ০৪ জানুয়ারী, ২০১৯   |   sonalisandwip.com
চীন আন্তর্জাতিক বেতার বাংলা বিভাগের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন

বেইজিং থেকে সম্প্রচারিত চীনের রাষ্ট্রীয় প্রচার কেন্দ্র “চীন আন্তর্জাতিক বেতার (সিআরআই) বাংলা বিভাগ”-এর ৫০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করেছে চীন থেকে একাধিক আন্তর্জাতিক অভিজাত শ্রেণীর পুরস্কারপ্রাপ্ত বেতার শ্রোতাসংগঠন “সাউথ এশিয়া রেডিও ক্লাব (সার্ক)-এর সিলেট জেলা শাখা।  
২০১৯ সালের ১ জানুয়ারি, মঙ্গলবার ছিলো “চীন আন্তর্জাতিক বেতার (সিআরআই) বাংলা বিভাগ”-এর ৫০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী সুবর্ণজয়ন্তী। এ উপলক্ষে সাউথ এশিয়া রেডিও ক্লাব (সার্ক)-এর সিলেট জেলা শাখা একটি উদযাপনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ক্লাবের কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও চীন আন্তর্জাতিক বেতার (সিআরআই)-এর বাংলাদেশ মনিটর দিদারুল ইকবাল সহ ক্লাবের সিলেট জেলা শাখার সভাপতি মো: চাঁন মিয়া, সাধারণ সম্পাদক মো: জসীম উদ্দীন, রাসেল আহমদ, কাজী সজল আমিন, মাজহার মাহীন, নুরুল আমিন, শাহীন খান, আজাদ প্রমূখ কেক কেটে সিআরআই বাংলা বিভাগের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করেন।  
তৎকালীন রেডিও পিকিং থেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে বাংলা অনুষ্ঠান প্রথম ইথারে জায়গা করে নেয় ১৯৬৯ সালের ১লা জানুয়ারি। তবে এই বেতারের বাংলা অনুষ্ঠান প্রচারের প্রস্তুতি কাজ শুরু হয় ১৯৬৮ সালের আগস্ট মাসে। আর গণচীনের বুক থেকে বাংলা ধ্বনি ইথারে ছড়িয়ে দেয়ার মহান দায়িত্ব পালন করে যান বেশ কয়েকজন চীনা নাগরিক এবং বাংলাদেশের কয়েকজন ভাষা বিশেষজ্ঞ। সময়ের বিবর্তন ও যুগের দাবীর প্রেক্ষিতে রেডিও পিকিং হয়ে গেল রেডিও বেইজিং এবং অবশেষে বর্তমান নামে রূপ নিল- চীন আন্তর্জাতিক বেতার (সিআরআই)। যদিও ১৯৪১ সালের ৩ ডিসেম্বর রাতে চীন আন্তর্জাতিক বেতারের প্রথম কন্ঠ ইথারে ভেসে ওঠে। রোজ কেবল ১৫ মিনিটের জাপানী ভাষার অনুষ্ঠান সম্প্রচার দিয়েই এই বেতারের যাত্রা শুরু হয়। তখন এই সংস্থার নাম ছিলো ইয়ান আন সিন হুয়া বেতার। চীনা জনগণ আর বিশ্বের বিভিন্ন দেশের জনগণের মধ্যকার সমজোতা এবং মৈত্রী গভীরতর করার লক্ষ্য নিয়েই চীন আন্তর্জাতিক বেতারের পথচলা শুরু হয়। 
বিশ্বের প্রচার মাধ্যমগুলোর অন্যতম শীর্ষস্থানীয় বেতার কেন্দ্র সিআরআই বহি: বিশ্বের শ্রোতাদের জন্য বর্তমানে ৬৫টি ভাষায় অনুষ্ঠান প্রচার করছে। যার গর্বিত একটি ভাষা হচ্ছে- বাংলা। বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশ থেকেই বাংলা ভাষায় অনুষ্ঠান প্রচারিত হয়। তবে অন্যান্য দেশের তুলনায় সিআরআই বাংলা অনুষ্ঠান আলাদা বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। চীন আন্তর্জাতিক বেতার হচ্ছে বিশ্বের একমাত্র আন্তর্জাতিক বেতার প্রতিষ্ঠান যারা (চীনা) নিজেরাই বাংলা ভাষা শিখে রেডিওতে বাংলা অনুষ্ঠান প্রচার করছে এবং প্রতিনিয়ত বাংলাদেশের জনগণের প্রত্যাশা ও পছন্দের দিকে লক্ষ্য রেখে অনুষ্ঠান পরিবেশন করছেন। বাংলা বিভাগের সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তা-কর্মী এবং বিশেষজ্ঞদের অক্লান্ত পরিশ্রম, নিরলস প্রচেষ্টা, মেধা ও সৃজনশীল চিন্তা চেতনায় বাংলা অনুষ্ঠান শ্রোতাদের কাছে অধিকতর আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে। শ্রোতাদের ব্যাপক চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে চীন আন্তর্জাতিক বেতারের বাংলা অনুষ্ঠান মালার ব্যাপক পরিবর্তন ও পরিবর্ধন করা হয়েছে। বাংলা অনুষ্ঠানসূচি প্রয়োজন অনুযায়ী সংশোধনের মাধ্যমে উন্নত করার পর এখন সংবাদ প্রচারের তাৎক্ষণিকতা জোরদার করার পাশাপাশি বিভিন্ন নিয়মিত ফিচার অনুষ্ঠানের বিষয়বস্তু ও রকমারিতা সমৃদ্ধ করা হয়েছে। এসব নিয়মিত ফিচার অনুষ্ঠান প্রচারের মাধ্যমে বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে এবং বহু পর্যায়ে ও ক্ষেত্রে চীনের অর্থনীতি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিরাট সাফল্যকে তুলে ধরা হচ্ছে। ফলে বাংলা অনুষ্ঠান বাংলাদেশ ও ভারতের শ্রোতাদের ওপর বিরাট প্রভাব ফেলেছে এবং ব্যাপক শ্রোতা ও পাঠকদের কাছে এখন তা সমাদৃত। বর্তমানে বিশ্বব্যাপী এ অনুষ্ঠানের নিয়মিত ও বন্ধুভাবাপন্ন অনেক শ্রোতাগোষ্ঠী রয়েছে যা সিআরআই বাংলা বিভাগের জন্য গর্বের এবং আনন্দের। চীন আন্তর্জাতিক বেতার ২৫ কোটিরও বেশী বাংলাভাষী জনগোষ্ঠির কাছে গত প্রায় ৫০ বছর অনুষ্ঠান সম্প্রচারের মাধ্যমে আকাশ পথে মৈত্রীর সেতুবন্ধন রচনা করেছে। ইথারের মাধ্যমে শ্রোতাদের কানে কানে সাম্য ও মৈত্রীর কথা প্রচার করে এসেছে। বর্তমানে চীন আন্তর্জাতিক বেতারের বাংলা বিভাগ নিয়মিত রেডিও অনুষ্ঠান প্রচারের পাশাপাশি দুটি বাংলা ওয়েবসাইট এবং ফেইসবুক, টুইটার ও বেশতো-এর মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও কনফুসিয়াস ক্লাসরুমের সাহায্যে বাংলাভাষীদের সামনে প্রকৃত চীনকে তুলে ধরার কাজ করে চলেছে। দু’দেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক বিনিময় বাড়ানোর ক্ষেত্রে সিআরআই বাংলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে চলেছে। 
সাউথ এশিয়া রেডিও ক্লাব ১৯৯৭ থেকে শুরু করে দীর্ঘ ২১ বছরে বাংলাদেশের শ্রোতাদের সাথে আকাশপথে চীনের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক জোরদার ও সুদৃঢ় করতে বিশাল ভূমিকা রেখেছে। প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে ক্লাবের পক্ষ থেকে চীন বেতারের প্রচারনায় চীনা চিত্রপ্রদর্শনী ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, ডিএক্সীং প্রদর্শনী, মেলা আয়োজন, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন, বৃক্ষ রোপণ, চীনের জাতীয় দিবস ও চীন বেতারের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন, স্বাস্থ্য ক্যাম্প, শিক্ষা উপকরণ বিতরণ সহ নানা সামাজিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে বছর জুড়ে। যেসব অনুষ্ঠানে চীনের রাষ্ট্রদূত, সিআরআই বাংলা বিভাগের কর্মকর্তা, বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রী, এমপি, মেয়র, কমিশনার, চেয়ারম্যান, পত্রিকার সম্পাদক, বাংলাদেশ বেতারের উর্ধ্বতন কতৃপক্ষ সহ বিশিষ্টজন উপস্থিত থেকেছেন।