আজ সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০ || ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ সোমবার, ০৮:২০ পূর্বাহ্ন
সোমবার, ১৮ মার্চ, ২০১৯   |   sonalisandwip.com
স্ত্রী কৃষ্ণা মজুমদারের সঙ্গে রাজন কর্মকার

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ডেন্টাল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এবং খাদ্যমন্ত্রী সাধন মজুমদারের জামাতা রাজন কর্মকারের (৩৯) রহস্যজনক মৃতু্য হয়েছে বলে তার স্বজনরা দাবি করেছেন। শনিবার রাতে রাজধানীর ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডের একটি বাসা থেকে রাজনকে স্কয়ার হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে ভোরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। রাজন কর্মকার বিএসএমএমইউ ডেন্টাল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক। তার স্ত্রী কৃষ্ণা মজুমদারও বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক।

এ বিষয়ে শেরে বাংলা নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জানে আলম বলেন, স্কয়ার হাসপাতালের ডাক্তাররা বলেছেন, রাজনের স্বাভাবিক মৃতু্য হয়েছে। তবে যেহেতু বিভিন্ন অভিযোগ এসেছে, এ জন্য ময়নাতদন্তের ব্যবস্থা করা হয়েছে। নিহতের মামা সুজন কর্মকার বলেন, প্রথমে নিহতের শ্বশুরবাড়ির লোকজন স্বাভাবিক মৃতু্য ধরে ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ হাসপাতাল থেকে নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু নন-ডায়াবেটিস (ডায়াবেটিস নেই এমন) একজন লোকের এমন মৃতু্য মেনে নেয়া যায় না। তারা ময়নাতদন্ত চেয়েছেন। রাজনের সহকর্মী বিএসএমএমইউয়ের মেডিকেল অফিসার ডা. ওমর ফারুক বলেন, রাজন হত্যার বিচার চান। তার জানা মতে, রাজনের কোনো শারীরিক অসুস্থতা ছিল না। তারা জেনেছেন, আগে থেকেই তার পারিবারিক কলহ ছিল। তারা মরদেহের ময়নাতদন্ত চান। নিহতের বন্ধু খুলনা সদর হাসপাতালের কনসালট্যান্ট নিতিশ কৃষ্ণ দাশ বলেন, মন্ত্রীর সঙ্গে তাদের কথা হয়েছে। তাকে অনুরোধ করা হয়েছে যেন, ময়নাতদন্ত করা হয়। তিনি সম্মত হয়েছেন।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, শনিবার রাতে গ্রিন লাইফ হাসপাতালে প্রাইভেট প্র্যাকটিস শেষে রাত ১২টায় বাসায় ফেরেন রাজন। রাত সাড়ে ৩টায় নিহতের মাকে ফোন করে বলা হয়েছে, তার ছেলে রাতে মারা গেছে। রাতেই স্কয়ারে নিলে চিকিৎসক রাজন কর্মকারকে মৃত ঘোষণা করেন। স্কয়ার হাসপাতালের জরুরি বিভাগের বক্তব্য শনিবার রাত ৩-৪৫ মিনিটে রাজনকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। ডা. সজীব সে সময় ডিউটিতে ছিলেন। তার বরাতে রোববার বিকাল ৪টায় ডা. আসাদ বলেন, মৃত অবস্থায় বডি নিয়ে আসা হয়। মরদেহ দেখে মনে হয়নি অস্বাভাবিক মৃতু্য। তাই পুলিশকে কিছু জানানো হয়নি। পরিবারকে জানানো হয়েছে। জানা গেছে, রাজন কর্মকার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অষ্টম ব্যাচের (বিডিএস) ছাত্র। তার গ্রামের বাড়ি নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জের এখলাসপুর। তার বাবার নাম সুনীল কর্মকার।