আজ রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ || ১০ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ রবিবার, ০৩:৩২ পূর্বাহ্ন
শনিবার, ০৪ আগস্ট, ২০১৮   |   sonalisandwip.com
সন্দ্বীপের কালজয়ী ইতিহাস : কাটগর থেকে সন্তোষপুর

# এস এম জাকিরুল আলম মেহেদী #

ঐতিহ্য বাহী সন্দ্বীপের নদী সিকিস্তি একটি মৌজা ও ইউনিয়নের নাম কাটগর। সন্দ্বীপের পশ্চিম সীমানায় কাটগরের অবস্থান হলেও এই কাটগর ইউনিয়ন অনেক কারনে সন্দ্বীপের ইতিহাসে প্রখ্যাত। যাদের কারনে বেশী প্রখ্যাত বর্তমান প্রজন্ম কিছুই জানেনা, জানবে বা কি করে? ইতিহাস বিকৃতি ও জলজ্যান্ত ইতিহাস অস্বীকার করা, নিজের ইচ্ছামত ইতিহাস লেখা সবই হয়েছে সন্দ্বীপের ইতিহাসে।

সন্দ্বীপের ইতিহাসে যাকে সন্দ্বীপের প্রথম উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন জনপ্রতিনিধি বলা হয়, যিনি নিজের স্বার্থের কথা চিন্তা না করে সন্দ্বীপের মানুষকে সারা বছর মাছে ভাতে রাখতে চেয়েছিলেন, যার চিন্তায় ছিল নদী সিকিস্তি সন্দ্বীপকে কখনো মানচিত্র থেকে হারিয়ে যেতে দেওয়া হবেনা সেই মরহুম সৈয়দ আব্দুল মজিদ এডভোকেটও ছিল কাটগর ইউনিয়নের অধিবাসী।

এডভোকেট সৈয়দ আব্দুল মজিদ সন্দ্বীপেকে নোয়াখালীর সাথে যুক্ত রাখতে ছেয়ে জনগনের রোষানলে পড়েন।

এডভোকেট মোজাম্মেল হোসেন সাহেবের বাড়ী সন্তোষপুর ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী মিয়া বাড়ীতে। মোজাম্মেল হোসেন সাহেব সময়ের দাবী ও সন্দ্বীপের জনগনের নোয়াখালীর নেতাদের প্রতি অবিশ্বাস দেখে সন্দ্বীপ কে নোয়াখালী জিলা থেকে চিন্ন করে চট্টগ্রাম জেলার সাথে সংযুক্ত করার প্রতিশ্রুতি দেন।

১৯৫৪ সালের নির্বাচনে এডভোকেট মোজাম্মেল হোসেন সাহেব প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি নির্বাচিত হলে সন্দ্বীপ কে চট্টগ্রামের অন্তভুক্ত করবেন। সে নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের প্রার্থী  মোজাম্মেল হোসেন সাহেব নির্বাচিত হয়ে সন্দ্বীপকে চট্টগ্রামের অন্তভুত করেন।

সেই হিসাবে সন্দ্বীপের ইতিহাস কাটগর থেকে সন্তোষপুর রচিত হল।সন্দ্বীপ হল চট্টগ্রাম জেলার অন্তভুক্ত।

# সাবেক শিক্ষক, পরিচালক হালিশহর মহিলা কলেজ। চট্টগ্রাম।