আজ বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪ || ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ বুধবার, ০৯:২৬ অপরাহ্ন
বৃহস্পতিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮   |   sonalisandwip.com
মগধরাস্থ মাইটভাংগা ফেরীঘাট টু কুমিরা নৌ রুটে পুনরায় স্টীমার সার্ভিস চালু করার দাবী

:: রিয়াদ রহমান ::

চট্টগ্রাম জেলাধীন সন্দ্বীপ উপজেলা সংসদীয় আসন ২৮০,চট্টগ্রাম ০৩ আসনে মাননীয় এমপি মহোদয়, উপজেলা চেয়ারম্যান,নব নির্বাচিত ১৭ নং মগধরা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও ০৪ নং ০৫ নং ওয়ার্ডস্থ মগধরা ইউনিয়নের মেম্বারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতেছি যে,সন্দ্বীপের ঐতিহ্যবাহী মগধরাস্থ মাইটভাংগা ফেরীঘাটে স্টীমার সার্ভিস চালু করা সহ সকল ধরনের ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ রহিল। ।

সন্দ্বীপের প্রবীনরা সকলে অবগত আছেন মাইটভাংগা ঘাঁট দক্ষিন সন্দ্বীপের জন্য একটি গুরুত্বপৃর্ণ নৌরুট। পরিতাপের বিষয় সন্দ্বীপের দক্ষিণ অঞ্চলের শত বছরে অতি পুরানো মাইটভাংগা ফেরীঘাট বর্তমানে মগধরা ফেরীঘাট হিসেবে পরিচিত। তবে ঘাঁটটি বর্তমানে বন্ধ। দুঃখের বিষয় সন্দ্বীপ উপজেলা সাবেক বিএনপি সরকারের মাননীয় এমপি জনাব আলহাজ্ব মোস্তফা কামাল পাশা তিনি তার একঘেয়ামী মনোভাব দিয়ে মগধরাস্থ মাইটভাংগা ফেরী ঘাট টি বন্ধ করে দেন। যার ফলে দক্ষিণ অঞ্চলের মানুষ শহরে যাতায়াতে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। যাত্রীদের খরচ বৃব্দি সহ সময়ের অপচয় মাধ্যমে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

তাই বর্তমান সন্দ্বীপ উপজেলা আওয়ামী নেতৃবৃন্দরা চ্যালেন্জ হিসেবে নিয়ে উক্ত মগধরাস্থ মাইটভাংগা ফেরীঘাট টি চালু করলে দক্ষিন সন্দ্বীপিরা উপকৃত হবে।এবং বর্তমানে উপজেলা শীর্ষ প্রতিনীধীরা চেষ্ঠা করলে পুনরায় চালু করতে পারবে বলে জনগণের দৃঢ় বিশ্বাস।এমন কি মগধরাস্থ মাইটভাংগা ফেরী ঘাট টি বন্ধ হওয়াতে জনগণ চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।এবং অত্র ফেরীঘাট টি সন্দ্বীপের বহু পরিচিত ও অতি সহজে অবাধে যাত্রীরা চলাচল করতে পারতো।বিশেষ করে চট্টগ্রাম শহড়ে যাতায়াত পথে মগধরাস্থ মাইটভাংগা ফেরীঘাট টু কুমিরা ফেরীঘাটের চলাচল অতি সহজতর।

যেমন নদীর স্রোত ও কুমিরা ঘাটের সীমানার ক্ষেত্রে অতি সহজতর একটি নৌ রুট।দক্ষিণ অঞ্চলের জনগণ মনে করেন অত্র ফেরী ঘাট টি চালু করে দক্ষিণ সন্দ্বীপের সাধারন জনগণের চরম দূর্ভোগ বন্ধ করা সহজ হবে।

এছাড়া আমরা জানি বর্তমানে মগধরা ১ নং ওয়ার্ড গুপ্তচড়া ফেরীঘাট থেকে নৌকা,সার্ভিস,ট্রলার,স্প্রীড বোর্ট চলা শুরু করে করে ঠিক মগধরাস্থ মাইটভাংগা ফেরীঘাট বরারর এসে স্রোতের অনূকূল নিয়ে কুমিরা ফেরীঘাটে রওনা করতে হয়।কিন্তু মগধরাস্থ মাইটভাংগা ফেরীঘাট থেকে অতি সহজতর নৌপথ।অত্র ফেরীঘাট টু কুমিরা ফেরীঘাট পর্যন্ত সাবেক স্টীমার সার্ভিস চালু ছিলো।এমন কি অত্র ফেরীঘাটের সুবিধার্থে দক্ষিনঅঞ্চলের জনগণ অবাধে চলাচল করতে পারতো।

সময় নষ্ট সহ অর্থ নষ্টের পরিমান কম হতো।এবং জনগণ অনেক আরাম ভোগ করতে পারতো।অত্র নৌ রুট টি বন্ধের ফলে দক্ষিণ অঞ্চলের জনগণ চরম বিপাকে পড়ছে।এছাড়া ছোয়াখালী ঘাট টি নদী ভাংগনের ফলে আরো কষ্ঠ পোহাহে হচ্ছে দক্ষিণ অঞ্চলের জনগণের।

বর্তমানে মগধরাস্থ মাইটভাংগা ফেরীঘাটে ১০ /১২ টি বালুর বোর্ট চলাচল করে।তাই দক্ষিণ অঞ্চলের জনগণ মনে করেন মাননীয় এমপি মহোদয়ের সহযোগিতায় অত্র মগধরাস্থ মাইটভাংগা ফেরীঘাট টি পুণরায় চালু করা সম্ভব।এবং চালু করে দক্ষিন অঞ্চলের জনগণের কাছে মাননীয় এমপি মহোদয় এক দৃষ্ঠান্ত হয়ে থাকবেন।

বিশেষ করে দক্ষিণ মগধরা, সারিকাইত, মাইটভাংগা, চৌকাতলী, দক্ষিণ মুছাপুর ও আজিমপুর ইউনিয়ন জনগণের জন্য অত্র মগধরা ফেরী ঘাট টি চালু করা জরুরী হয়ে পড়ছে।মগধরাবাসী সহ দক্ষিণ সন্দ্বীপের জনগণ মনে করেন মগধরাস্থ মাইটভাংগা ফেরীঘাট টি তে পুণরায় স্টীমার সার্ভিস চালু করা দ্রুত প্রয়োজন।